বিশ্বস্বাস্থ্য দিবস আজ, ভেজাল খাবারের ঝুঁকিতে দেশ

বিষাক্ত কেমিক্যাল সংমিশ্রণে খাদ্যসামগ্রী উত্পাদন ও ভেজাল খাবার বাজারজাতকরণ অব্যাহতভাবে চলছে। এ ভেজাল ও বিষাক্ত খাদ্য প্রতিরোধে সরকারের কার্যক্রম ব্যাপকভাবে চলছে। তারপরও ভেজাল বিষাক্ত ও কেমিক্যাল সংমিশ্রণে উত্পাদিত খাদ্যসামগ্রীর আগ্রাসনে স্বাস্থ্যসেবা চরম হুমকিতে। এ পরিস্থিতি সামনে রেখে আজ মঙ্গলবার বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালিত হবে। দিবসটি উপলক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নানা কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন। এ বছর বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে “নিরাপদ পুষ্টিকর খাবার সুস্থ জীবনের অঙ্গীকার”। খাদ্য এ দেশের সংবিধানেও রাষ্ট্রের মৌলিক চাহিদা হিসাবে স্বীকৃত। সেই খাদ্যের নামে মানুষ কি খাচ্ছে? ক্যালসিয়াম কার্বাইডসহ নানা ধরনের দ্রব্য দিয়ে অপরিপক্ব ফল পাকানো হচ্ছে। মাছ, দুধ, ফল কিংবা তরিতরকারিতে লাশ সংরক্ষণের ফরমালিন মেশানো হয়। সেই সকল খাদ্য আমরা খাচ্ছি নিয়মিত। ওষুধের নামে ভেজাল ও নিম্নমানের ওষুধে বাজার সয়লাব। এ ওষুধ ঢাকার বাইরে ব্যাপক হারে বাজারজাত চলছে। ভেজাল ওষুধ নিয়ন্ত্রণে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের গাছাড়া ভাব। মিনারেল ওয়াটারের নামে ওয়াসার কিংবা নদী-নালার পানি বোতলজাত করে দেদারসে বাজারজাত চলছে। সাম্প্রতিককালে পরীক্ষাগারে বাজারজাতকৃত মিনারেল ওয়াটার পরীক্ষা করা হয়। দেখা গেছে ৯৮ ভাগই মিনারেল ওয়াটার নয়। ব্যাকটেরিয়াসহ নানা রোগজীবাণু ঐসব মিনারেল ওয়াটারে রয়েছে। সায়েন্স ল্যাবরেটরি, সিটি করপোরেশনের ও পাবলিক হেলথ ইনস্টিটিউটের খাদ্য পরীক্ষাগারে বাজারজাতকৃত খাদ্যসামগ্রী নিয়মিত পরীক্ষা করা হয়েছে। এভাবে পরীক্ষাগারে রিপোর্টে বাজারকৃত খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ ভেজাল ও বিষাক্ত কেমিক্যাল সংমিশ্রণের প্রমাণ পাওয়া যায়। এর মধ্যে নিরাপদ পুষ্টিকর খাবার পাওয়া দুঃসাধ্য। কিডনি, লিভার, ক্যান্সার, গাইনি, স্নায়ু ও শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকদের মতে, দেশে কিডনি, ক্যান্সার, লিভার নষ্ট, ডায়াবেটিসসহ অসংক্রামক দাবি আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, অনিরাপদ খাদ্য গ্রহণে অসময়ে গর্ভপাত, হাবাগোবা ও বিকলাঙ্গ শিশু ব্যাপকহারে জন্ম নিচ্ছে। এগুলো বিষাক্ত খাদ্যসামগ্রী ও ফলমূলের কুফল বলে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা জানান। এসব প্রতিরোধে নিরাপদ খাদ্য গ্রহণ ছাড়া কোন বিকল্প নেই। পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ সচেতনতা থাকতে হবে।
দেশে ২৭৭টি এ্যালোপ্যাথিক কোম্পানি, ইউনানী, আয়ুর্বেদিক, হোমিওপ্যাথিসহ প্রায় ৮শ’ কোম্পানি ওষুধের নামে কী সব বাজারজাত করছে তা তদারকি করা ওষুধ প্রশাসনের পক্ষে সম্ভব নয়। শুধু ২৭৭টি কোম্পানীর মধ্যে হাতেগোনা ১৫ থেকে ২০টি কোম্পানীর ওষুধ বাজারে দেখা যায়। বাকি কোম্পানি কি তৈরি করছে তা দেখার কেউ নেই।
র্যাবের মোবাইল কোর্ট প্রায়ই অভিযান চালিয়ে বস্তায় বস্তায় ভেজাল ও নকল ওষুধ উদ্ধার করে থাকে। সাম্প্রতিককালে প্যারাসিটামল ওষুধ খেয়ে কয়েকশ’ শিশু মারা যায়।
ঢাকা শিশু হাসপাতালের অধ্যাপক ডাঃ মোঃ হানিফ চাঞ্চল্যকর এ বিষয়টি উদঘাটন করেন। তারপরও বিষাক্ত প্যারাসিটামল উত্পাদনকারী প্রতিষ্ঠানের তেমন শাস্তি হয়নি।
ভেজাল খাদ্য উত্পাদন ও বাজারজাত সর্বোচ্চ শাস্তি ৫ বছর কারাদণ্ড ও ১০ লাখ জরিমানা বিধান করা হয়েছে। বর্তমান সরকার ন্যাশনাল ফুড সেফটি এ্যাক্ট-২০১৩ প্রণয়ন করেছে। তা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। ভেজাল ও নিম্নমানের ওষুধের জন্য শাস্তি বিধান সীমিত। সর্বোচ্চ শাস্তি ১০ বছর ও ৫ লাখ টাকা জরিমানা। ভেজাল, নিম্নমান ও বিষাক্ত ওষুধ খেয়ে মারা গেলে শাস্তির বিধান নেই। ওষুধ প্রশাসনের এক শীর্ষ কর্মকর্তা এর সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন জনস্বার্থে খাদ্য অডিন্যান্সের ন্যায় শাস্তির বিধান করা প্রয়োজন। ভেজাল ও বিষাক্ত ওষুধ সেবনে কেউ মারা গেলে এর জন্য শাস্তির বিধান করলে ভেজাল ওষুধ উত্পাদন হ্রাস পাবে। কিংবা নিয়ন্ত্রণে থাকবে বলে উক্ত শীর্ষ কর্মকর্তা জানান। এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষায় অনিরাপদ খাদ্য, ভেজাল ও নকল ওষুধ উত্পাদন এবং বাজারজাতকারীদের বিরুদ্ধে চরম শাস্তি বিধানের উদ্যোগ নেয়া হবে। এসবের সঙ্গে জড়িতদের কোন ধরনের ছাড় দেয়া হবে না, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে মন্ত্রী জানান।
রায়ে জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার
প্রতিফলন হয়েছে :নাসিম
এদিকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, মানবতাবিরোধী অপরাধে অপরাধী জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহালের রায়ে আওয়ামী লীগ ও জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন হয়েছে। গতকাল ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে মুজিবনগর দিবস উদযাপন কমিটির প্রস্তুতি সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের সাথে সমঝোতা করে, খুনির সঙ্গে নয়। কোন খুনির সঙ্গে সমঝোতা কোন দিনই হবে না। বিএনপি নেত্রীর প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, একজন মহিলা এতদিন বাসার বাইরে ছিল। তিনি তো বাসায় ফিরে যাবেনই। এতদিন বাইরে ছিল এটাই তো আশ্চর্যজনক।
আসন্ন সিটি নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে কতটুকু আশাবাদী এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা সবসময় নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে করার পক্ষপাতী। অতীতে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে। জনগণের রায়ে আমাদের কোন বাধা নেই।
আগামী ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার দিবসের কর্মসূচি ঘোষণা করেন মোহাম্মদ নাসিম। মুজিবনগর দিবস উদযাপন কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে বৈঠকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক আব্দুল মান্নান খানসহ খুলনা বিভাগের বিভিন্ন জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।
মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষা ও উন্নয়নে
এগিয়ে আসার আহ্বান
স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, দেশের মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষা ও উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি কর্মকর্তা ও সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি গতকাল সোমবার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস- ২০১৫ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ আহবান জানান।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, স্বাস্থ্যসেবার মান সংরক্ষণের ক্ষেত্রে হাসপাতালগুলোর সামনে অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ করা হচ্ছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। হাসপাতাল প্রাঙ্গনে সৌন্দর্যবর্ধনে ইতোমধ্যে বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে। এ ব্যাপারে সরকারের তত্পরতা অব্যাহত আছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে খাদ্যে ভেজালে ফরমালিন ও কার্বাইড ব্যবহূত হচ্ছে। খাদ্যে রাসায়নিক দ্রব্যের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহারে ক্যান্সার ও কিডনি নষ্টসহ মৃত্যুর আশংকা থাকে। দেশের জনগণের খাদ্য নিরাপত্তায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগীদেরকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য সচিব সৈয়দ মঞ্জরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার প্রতিনিধিরা।

About The Author

admin

Leave a Reply