জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল পতিরোধ ফাউন্ডেশন
জাতীয় ভেজাল পতিরোধ ফাউন্ডেশন

ভেজাল বেকারি পণ্যে সয়লাব : স্বাস্থ্যঝুঁকিতে চট্টগ্রামবাসী bekari

চট্টগ্রাম, ২৫ নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  সকালে ঘুম থেকে উঠে পাউরুটি আর বন দিয়ে নাস্তা করছেন তো?। খিদে লাগলেই খাচ্ছেন নুডলস, বিস্কিট, কেক, চনাচুরসহ বেকারির তৈরী সব খাবার। কিন্তু এসব খাবার কি দিয়ে এবং কিভাবে তৈরী হচ্ছে সেটা কি জানেন। একটু খোঁজ নিন না। বাঁচতে হলে জানতেই হবে আপনি কি খাচ্ছেন। আর জানলে এসব খাবার খাওয়া তো দূরের কথা; বিগত জীবনে যা খেয়েছেন তা বমি করে দিতেও ইচ্ছে করবে। এসব খাবার তৈরী মোটেই যে স্বাস্থ্যদায়ক নয়, সেটা বুঝে নিন ভেজাল

ভেজাল নির্মূলে সর্বশক্তি নিয়োগ করতে হবে

মায়ের গর্ভে যখন একটি শিশুর জন্মের প্রক্রিয়া শুরু হয়, সেসময় থেকে পরবর্তীকালে বেড়ে ওঠা এবং মৃত্যু পর্যন্ত মানুষের জন্য খাবার প্রয়োজন। খাদ্য গ্রহণ না করলে মানুষ বাঁচতে পারবে না। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় সব খাদ্যদ্রব্যেই মেশানো হচ্ছে ভেজাল। একারণে কোন খাবারই এখন আর নিরাপদ নয়। ফলমূলে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কার্বাইডসহ নানা বিষাক্ত কেমিক্যাল, মাছে ও দুধে ফরমালিন, চানাচুর-জিলাপিতে মবিল, সবজিতে কীটনাশক, বিস্কুট-আইসক্রিম-জুস-সেমাই-আচার-নুডলস্ এবং মিষ্টিতে টেক্সটাইল ও লেদার রং, পানিতে ক্যাডমিয়াম, লেড, ইকোলাই, লবণে সাদা বালু, চায়ে করাতকলের গুঁড়ো, গুঁড়ো মসলায়

কোথায় নেই ভেজাল

খাদ্যে ভেজাল নতুন কিছু নয়। প্রায়ই এ নিয়ে চলছে অভিযান। জেল, জরিমানাও করা হচ্ছে। তারপরও বন্ধ হচ্ছে না ভেজাল। জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরও বিষয়টি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে ভেজালের ভয়াবহ চিত্র। চকলেট থেকে প্রপার্টি প্রায় সবক্ষেত্রেই ভেজালের প্রমাণ তাদের হাতে। এতে দেখা যায়, দিন দিন বিস্তৃত হচ্ছে ভেজালের গণ্ডি। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কার্যক্রম ও গবেষণা বিভাগের পরিচালক ড. মো. শাহাদাৎ হোসেন মানবজমিনকে বলেন, নানা বিষাক্ত ও দূষিত ক্ষতিকর উপাদান অভিনব কায়দায় খাদ্য ও ব্যবহার্য পণ্যে মিশিয়ে

মাছে ভেজাল না দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের মৎস্য সম্পদের বিপুল সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে সামান্য মুনাফার লোভে মাছে ভেজাল না দিতে মৎস্য ব্যবসায়ী, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও রফতানিতে সম্পৃক্তদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিছু কিছু মানুষের একটু ভেজাল দেবার প্রবণতা রয়েছে। এই ভেজাল দিয়ে বেশি মুনাফা করতে গিয়ে একেবারে নিজের ব্যবসারও সর্বনাশ। দেশেরও সর্বনাশ। এই সর্বনাশের পথে যেন কেউ না যায়। বিশেষ করে আমাদের মৎস্য ব্যবসায়ীরা।’ আজ বুধবার সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ মিলনায়তনে জাতীয় মৎস সপ্তাহ-২০১৭ উদযাপন উপলক্ষ্যে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির

ভেজাল মুক্ত রেখে – সকলকে সুস্হ রাখুন

এস এম পান্নাঃ জীবণ বাuচার জন্য  খাদ্যর প্রয়োজন ।  সেই খাদ্যর মধ্যেই  যদি ভেজাল থাকে তাহলে, জীবন রক্ষা  হবে কিভাবে । ইতি মধ্যে  জাতীয় ভেজাল প্রতিরোধ ফাউন্ডেশনের কায্য©ক্রমের উপর ভিওি করে, রাজধানীর-উওরার আশে পাশে উওরখান ও দক্ষিনখান সহ  বিশাল এলাকা জুড়ে আমরা প্রচার প্রচারণার কাজ করে আসছি। এই বিশাল এলাকা জুড়ে কয়েক লক্ষ মানুষের বসবাস । আমরা ভেজাল মুক্ত রাখার জন্য গণসচেতনতামূলক প্রচারনার কাজ করে আসছি, প্রচারনার মাঝে অনেক অনিয়ম চোখে পড়েছে  কেননা আশ-পাশ ও উওরা এলাকা সহ কয়েক লক্ষ

খাবারে ভেজাল মেশালে এবার চরম শাস্তি

স্বাধীনতার আগে জওহরলাল নেহরু একবার বলেছিলেন, কালোবাজারিদের ল্যাম্পপোস্টে ঝোলানো উচিত৷ কিন্তু স্বাধীনতার পর প্রথম প্রধানমন্ত্রী তেমনটি করতে পারেননি আইনের অনুশাসন প্রতিষ্ঠা ও তার উপর জনগণের আস্থা স্থাপনের জন্যই৷ কিন্তু মানুষের জীবন-মরণের সঙ্গে সম্পর্কিত বিষয়টিতে একটি কঠোর আইনের জন্য সত্তর বছর অপেক্ষা করতে হল৷ এবার ভেজাল খাদ্য উৎপাদন ও বিক্রিতে শাস্তি আরও কঠোর হচ্ছে৷ হতে পারে যাবজ্জীবন কারাবাস এবং কয়েক লক্ষ টাকা জরিমানা৷ বর্তমানে এই ধরনের অভিযোগের ক্ষেত্রে ছ’মাস পর্যন্ত কারাবাস ও এক হাজার টাকা আর্থিক জরিমানার সংস্থান রয়েছে আইনে৷ তবে ভারতীয় দণ্ডবিধির

যা খাচ্ছি সব ভেজাল: চরমোনাইর পীর

কলাপাড়া: চরমোনাইর পীর এবং ইসলামী আন্দোলনের আমীর মুফতী সৈয়দ মো.রেজাউল করীম বলেছেন, বাংলাদেশে আমার যা খাচ্ছি, প্রতিটা জিনিসের ভিতরে ভেজাল। যেটার মাধ্যমে মানুষ দিন দিন আরও দূর্বল হচ্ছে। আর বিভিন্ন দেশে দেখবেন যারা খাদ্যের ভিতর ভেজাল ডুকায় তাদের শাস্তি হলে একেবারেই কতল। সোমবার বিকেল সাড়ে চারটায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কলাপাড়া উপজেলা শাখা আয়োজিত কলাপাড়া পৌর শহরের শিশু পার্কের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বল ইসলামী আন্দোলন পটুয়াখালী জেলা শাখার সভাপতি মুফতী মো. হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে

ভেজাল প্যারাসিটামল: রীড ফার্মার মালিকসহ ৫ আসামি খালাস

ভেজাল প্যারাসিটামল পানে শিশু মৃত্যুর ঘটনায় সাত বছর আগে রীড ফার্মাসিউটিক্যালসের বিরুদ্ধে করা মামলায় পাঁচ আসামির সবাইকে খালাস দিয়েছে আদালত। ঢাকার ঔষধ আদালতের বিচারক আতোয়ার রহমান সোমবার এই রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিচারক উল্লেখ করেছেন, মামলার বাদী ও তদন্ত কর্মকর্তার ‘অযোগ্যতা ও অদক্ষতার কারণে’ অভিযোগ প্রমাণ করতে রাষ্ট্রপক্ষ ব্যর্থ হয়েছে। পাঁচ আসামির মধ্যে রীড ফার্মার মালিক মিজানুর রহমান ও তার স্ত্রী কোম্পানির পরিচালক শিউলি রহমান রায়ের সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আর কোম্পানির পরিচালক আব্দুল গণি, ফার্মাসিস্ট মাহবুবুল ইসলাম ও এনামুল

ভেজাল ও রাসায়নিক মিশ্রিত খাদ্যঃ দীর্ঘমেয়াদি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

   বাংলাদেশে খাদ্যে ভেজাল ও বিষাক্ততা যেভাবে বিস্তৃত হচ্ছে তাতে ভেজাল ঠেকানো অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়েছে। খাদ্যে ভেজাল রোধে অনেক আইন আছে কিন্তু প্রয়োগ নেই। এভাবে চলতে থাকলে ভেজালযুক্ত খাবার খেয়ে এ জাতি একদিন পঙ্গু জাতিতে পরিনত হবে। বিভিন্ন সময়ে ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালনায় সামান্য কিছু অর্থ জরিমানা করা হচ্ছে তাতে কাঙ্খীত ফলাফল আসছেনা। বরং ভেজাল বিক্রেতা ও প্রস্তুতকারীরা নব উদ্যোমে নিরব গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে। শাক-সবজি, মাছ-মাংস, দুধ, মরিচ, মসলা থেকে শুরু করে ফলমূল ও নিত্য প্রয়োজনীয় সব খাদ্যে ভেজালে

ভেজাল নির্মূলে সর্বশক্তি নিয়োগ করতে হবে

মায়ের গর্ভে যখন একটি শিশুর জন্মের প্রক্রিয়া শুরু হয়, সেসময় থেকে পরবর্তীকালে বেড়ে ওঠা এবং মৃত্যু পর্যন্ত মানুষের জন্য খাবার প্রয়োজন। খাদ্য গ্রহণ না করলে মানুষ বাঁচতে পারবে না। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় সব খাদ্যদ্রব্যেই মেশানো হচ্ছে ভেজাল। একারণে কোন খাবারই এখন আর নিরাপদ নয়। ফলমূলে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কার্বাইডসহ নানা বিষাক্ত কেমিক্যাল, মাছে ও দুধে ফরমালিন, চানাচুর-জিলাপিতে মবিল, সবজিতে কীটনাশক, বিস্কুট-আইসক্রিম-জুস-সেমাই-আচার-নুডলস্ এবং মিষ্টিতে টেক্সটাইল ও লেদার রং, পানিতে ক্যাডমিয়াম, লেড, ইকোলাই, লবণে সাদা বালু, চায়ে করাতকলের গুঁড়ো, গুঁড়ো মসলায়